ওসমানী সুলতানের কাছে (স্পেনের) মরিস্কোদের আবেদন

ইসলামের রাজনৈতিক ইতিহাসকে ক্ষমতা এবং দুর্বলতার মাঝে দোদুল্যমান একটি চক্রের আকারে বিবেচনা করা যায়। ৮ম থেকে ১১শ শতক পর্যন্ত গণিত ও বিজ্ঞান গবেষণায় অপরিসীম অবদান রেখে যাওয়া আব্বাসীয় খিলাফতের মর্মান্তিক ইতি ঘটে ১২৫৮ খ্রিস্টাব্দে মঙ্গোলদের বাগদাদ ধ্বংসযজ্ঞের মাধ্যমে। আবার এই ধ্বংসাবশেষ থেকেই ওসমানীদের উত্থান হয় এবং এক সময় তাঁরা হয়ে উঠে ইউরোপের সবচেয়ে শক্তিধর সাম্রাজ্য। তবে শেষ পর্যন্ত ১ম বিশ্বযুদ্ধের পরিসমাপ্তির সাথে সাথে বোবা কান্নার মতো ওসমানীদেরও পতন ঘটে। এমন অনেক উদাহরণ বিভিন্ন মুসলিম সমাজের ক্রম উত্থান-পতন চিত্রায়ণ করে

উত্থান ও পতনের এই চক্রের মাঝে আবার এমনও অনেক সময় গিয়েছে যখন কাকতালীয়ভাবে এক মুসলিম সমাজের পতন এবং আরেক মুসলিম সমাজের উত্থান একই সময়ে ঘটেছে। এমনই এক ঘটনা ঘটেছিল ১৫শ শতকের শেষে ও ১৬শ শতকের শুরুতে যখন ভূমধ্যসাগরের পশ্চিম প্রান্তে আন্দালুসিয়া (মুসলিম স্পেন) তার স্বাধীনতা হারায় আর পূর্ব প্রান্তে ওসমানীরা হয়ে উঠছে প্রাচ্যের মুখ্য শক্তি

Sultan Bayezid II

ওসমানী সুলতান দ্বিতীয় বায়েজিদ তাঁর গোটা নৌবাহিনীকে স্পেনে পাঠান ইহুদিদেরকে উদ্ধার করে ইস্তানবুলে নিয়ে আসার জন্য যাতে স্পেনে তাদের জন্য যে গণহত্যা অপেক্ষা করছিল তা তারা এড়াতে পারে

১৪৯২ খ্রিস্টাব্দে আইবেরিয়া (বর্তমান স্পেন ও পর্তুগাল) এর সর্বশেষ মুসলিম রাষ্ট্র- ‘গ্রানাদা আমিরাত’ এর পতন ঘটে খ্রিস্টান ক্যাস্টিলে ও অ্যারাগন প্রদেশের সম্মিলিত বাহিনীর কাছে। ক্যাস্টিলে ও অ্যারাগন প্রদেশ একত্রিত হয়ে পরবর্তীতে স্পেন গঠন করে। আইবেরিয়াতে থেকে যাওয়া মুসলিম অধিবাসীরা “মরিস্কো” নামে পরিচিত ছিল। গ্রানাদা আমিরাত দখলের পর গ্রানাদার মুসলিম অধিবাসীদেরকে ক্যাথোলিক সম্রাটরা ধর্মীয় স্বাধীনতার প্রতিশ্রুতি দেন।

তবে ১৫০২ খ্রিস্টাব্দে এক রাজকীয় ফরমানের মাধ্যমে ক্যাথোলিক খ্রিস্টান ধর্মকে রাষ্ট্রধর্ম হিসেবে ঘোষণা দেয়া হয় এবং সকলের উপর এই ধর্ম জোরপূর্বক চাপিয়ে দেয়া হয়। আর মুসলিমদের জন্য বিধান হয় যে, তাদেরকে সর্বসমক্ষে ক্যাথোলিকে ধর্মান্তরিত হওয়ার ঘোষণা দিতে হবে, নাহলে বরণ করে নিতে হবে কঠোর শাস্তি।

ধর্মীয় নিপীড়ন-নির্যাতনের এই কঠিন দুর্যোগপূর্ণ পরিবেশে ১৫০২ খ্রিস্টাব্দে আন্দালুসিয়া (মুসলিম স্পেন) এর এক অজ্ঞাতনামা কবি ওসমানী সুলতান দ্বিতীয় বায়েজিদ (শাসনকালঃ ১৪৮১-১৫১২ খ্রিস্টাব্দ) এর কাছে সাহায্যের আবেদন করে একটি কবিতা রচনা করেন। তাঁর আবেদনপত্রটির অংশবিশেষ নিম্নে তুলে ধরা হলোঃ

আমাদের ঘোড়সওয়ার আর পদাতিক বাহিনী যখন ধ্বংসন্মুখ —
আমরা চেয়ে চেয়ে দেখলাম, আসন্ন কোন উদ্ধার তৎপরতা নেই মোদের সহদোরের।

ফুরানো রসদ, ভাগ্য ক্রমেই কঠিনতর, ইচ্ছের বিরুদ্ধে আত্মসমর্পিত আমরা —
পদে পদে কেবল লাঞ্ছনার ভয়,
আত্মজ আর আত্মজার জন্য পুষে রাখা ভয় (গিলে খেলো আমাদের);
এই বুঝি বন্দি হলো ওরা অথবা জবাই!

শর্ত একটাই, অগ্রজ মুদেজারদের (আন্দালুসিয়ার মুসলিম) মতন
এই পুরনো ভিটের নামমাত্র বাসিন্দা হয়ে বাঁচবো —
যেখানে থাকবেনা আমাদের আযানের ধ্বনি কিংবা কোন উৎসব, কেবল কতক বিধান ছাড়া।

এই ধরো, আমাদের কেউ যেতে চাইলো আফ্রিকার পথে, নিরাপদে —
নিজের সর্বস্ব বিলিয়ে দিয়েও (নিশ্চয়তা মেলেনি তারও)!
এবং আরো কত শত শর্ত!! সামর্থ্যের সবটুকু দিয়েও যদি স্পর্শ করা যেতো শর্তের সিলিং।

তারপর তাদের সম্রাট (ফার্নান্দো) আমাদের বললো, “এর বেশি আর কি চাই তোমাদের?”
চোখের সামনে মেলে ধরলো চুক্তিপত্র —
“তোমাদের প্রতি এই রইলো আমার ক্ষমা আর নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতি!
সুতরাং নিজেদের ভিটেয় ফিরে যাও উল্লাসে, আগের মতই। আর কৃতজ্ঞ হও”।।

অতপর! আমরা যখন চুক্তির প্রতিশ্রুতিতে (নিরাপদ),
সহসায় চুক্তি ভাঙলো ওরা বিশ্বাসঘাতকের মতো।

সে চুক্তি ভেঙেছে, প্রতারণা করেছে, আর আমাদের বানিয়েছে খ্রিস্টান —
গায়ের জোরে, চরম কঠোরতায় আর নির্দয়ভাবে!

আমাদের সমস্ত বই পুড়িয়েছ, মিশিয়েছে গোবর অথবা আবর্জনায়,
যদিও প্রত্যেকটিই ছিলো ধর্মগ্রন্থ- তবু কেনো আগুনে দিলো অবজ্ঞায় আর উপহাসে!!
কোন মুসলিমের এক খণ্ড বইও তারা ছাড়েনি,
ছাড়েনি নির্জনে বসে পড়ার মতন একগুচ্ছ পংক্তিও!

যারাই সিয়ামরত ছিলো, কিংবা সলাতে;
(তাদের লেলিয়ে দেয়া) আগুন থেকে বাঁচতে পারেনি কেউ।
আর আমাদের মধ্যে যারা বিশ্বাস বিসর্জন দিলো না,
পুরুতের কঠোর সাজাই হোলো তার মনিহার।

দু’গালে সশব্দ চড়, সম্পদ বাজেয়াপ্ত, তারপর নির্বাসন কোন এক ভয়ঙ্কর দ্বীপে!!
এমনকি রমজানের দিনগুলোতে দিনের পর দিন তারা আমাদের সাওমগুলো নষ্ট করেছে!

সহজ কিংবা কঠিন সময়গুলোতে, নবীকে ডাকার বদলে
তাঁকে অভিসম্পাতের আদেশ দিত তারা।
একটি দলকে তারা মুহাম্মাদের নাম জিকির করতে শুনেছিলো —
অতপর তাদের হাতগুলো হয়েছিলো রক্তাক্ত মাংসের দলা!

আর তাদের বিচারক আর গভর্নরেরা ওদের মেরেছে,
জরিমানা করেছে, জেলে পুরে অপদস্ত করেছে বারংবার।

সেই মৃতপ্রায় লোক, যে তাদের শঠতাপূর্ণ আহবানে কান দেয়নি —
তাকে তারা দাফনে অস্বীকৃতি জানালো,
মৃত পশুর মতন উপুড় করে ফেলে রাখলো তাকে, গোবরের গাদায়।
(এ আর কি) এরকম আরো ভুরিভুরি নির্লজ্জ কাজ, আরো কতশত পাপাচার!

আমাদের নামগুলো বদলে দেয়া হয়েছিলো নতুন নামে,
ইচ্ছা কিংবা সম্মতির ধার না ধেরেই!

অতঃপর, হায়!! মুহাম্মাদের ধর্ম বদলে নিকৃষ্ট কুকুরগুলোর ধর্মে দীক্ষা নেয়া!
আফসোস আমাদের নামগুলোর জন্য, যেগুলো বদলে গিয়েছিলো মূর্খ অনারবদের বদৌলতে!
আফসোস আমাদের সন্তানদের জন্য, প্রতি সকালে তাদের ছুটতে হয় পাদ্রীর কাছে
যে তাদের শেখায় অবিশ্বাস, মূর্তিপূজা আর মিথ্যা —
যখন নিজেরা কৌশলের খেলায় সম্পূর্ণ পরাজিত!

আফসোস সেই মাসজিদগুলোর জন্য, বহুশতাব্দীর শুদ্ধতার চিহ্ন মুছে
যাদের বানানো হয়েছিলো নাস্তিকতার ভাগাড়!

সেই মিনারগুলোর জন্যও আফসোস!
আজানের ধ্বনির পরিবর্তে যেখানে আজ বাজে ঘণ্টাধ্বনি!
সেই শহরগুলো আর তার সৌন্দর্যের জন্যও আফসোস!
অবিশ্বাসের ফাঁদে যেগুলো আজ অন্ধকারাচ্ছন্ন!

পরবর্তী অভিযান সামাল দিতে শহরগুলো আজ হয়ে ওঠেছে
দুর্ভেদ্য দুর্গ- ক্রুশবাহীদের জন্য।
আর আমরা, পরিণত হয়েছি তুচ্ছ দাসে —
বন্দীও নই যে মুক্তির আশায় বাঁচবো,
নই সেই মুসলিমও যার কণ্ঠে বাজবে কালেমার ধ্বনি।

অতপর, যদি তোমাদের দৃষ্টিগোচর হতো আমাদের দুর্ভাগ্য —
চোখগুলো তোমাদের প্লাবিত হতো নির্ঘাত।

আফসোস! আমাদের জন্য আফসোস!
হায় আমাদের দুর্ভাগ্য!
ক্ষতি, কষ্ট আর নিপীড়নের পোশাকে আঁকড়ে ধরা দুর্ভাগ্য!!

 

অনুবাদ করা হয়েছেঃ A Morisco Appeal to the Ottoman Sultan আর্টিকেল থেকে।
অনুবাদকঃ আসিয়াহ্‌ বিনতে আহমাদ এবং হাসান এফেন্দি

 

Source:

“Morisco Appeal to the Ottoman Sultan.” Medieval Iberia: Readings from Christian, Muslim, and Jewish Sources. Ed. Olivia Constable. Philadelphia: U of Pennsylvania, 2012.

Advertisements

About ইসলামের হারানো ইতিহাস

An Islamic history website in Bengali language which is basically the Bengali translation of the “Lost Islamic History” website (lostislamichistory.com) and Facebook page (fb.com/LostIslamicHistory).
This entry was posted in আল-আন্দালুস (মুসলিম স্পেন), ওসমানী ইতিহাস and tagged , , , , . Bookmark the permalink.

One Response to ওসমানী সুলতানের কাছে (স্পেনের) মরিস্কোদের আবেদন

  1. পিংব্যাকঃ স্পেনের বিস্মৃত মুসলিমরা – মরিস্কোদের উচ্ছেদ | ইসলামের হারানো ইতিহাস

পোস্টটির ব্যাপারে আপনার মন্তব্যঃ

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s